আজ সোমবার,৮ই অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,২৩শে নভেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

Sample Image of Doctors Voice

কতিপয় অভিজ্ঞ হোমিওপ্যাথিক ডাক্তারের বিভিন্ন অভিজ্ঞতা ও পরামর্শ

হোমিওপ্যাথিক অভিজ্ঞতা ও মর্মবাণী


সানরাইজ৭১ এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। সানরাইজ৭১ পরিবারবর্গও ভালো আছে। আজ আপনাদের সাথে আলোচনা করবো হোমিওপ্যাথিক মর্মবাণী সম্বন্ধে যেখানে কতিপয় অভিজ্ঞ হোমিওপ্যাথিক ডাক্তার এর হোমিওপ্যাথি বিষয়ক বাণী তুলে ধরা হয়েছে। আশা করছি, উপকৃত হবেন। তো আর কথা নয় – সরাসরি যাচ্ছি মূল আলোচনায়।

 

আর্নিকা মন্টঃ হাড় ভাঙা এবং হাড় সরে যাওয়াতে আর্নিকা মন্ট ওষুধ সেবনের পাশাপাশি আক্রান্ত জায়গায় ত্বকের উপর এই ওষুধের মূল আরক বা মুলারিস্ট লাগালে ব্যথা এবং স্নায়বিক উত্তেজনা যাদুর মতো কমে যায়।




এন্টিম ক্রুডঃ আদর করলে কোনো শিশু রেগে গেলে এন্টিম ক্রুড বিশেষ উপকারী।

 

এন্টিম টার্টঃ টিকার কুফলে কোনো রোগের সৃষ্টি হলে এন্টিম টার্ট সেক্ষেত্রে ভালো ফল দেয়।

 

এসিড ফসঃ রোগীর জ্বর ধীরে ধীরে আসে, জ্বরের সময় রোগী চোখ বুঁজে চুপ করে পড়ে থাকে, মনে হয় ঘুমাচ্ছে কিন্তু জাগালে সম্পূর্ণ জ্ঞান ফিরে পায় লক্ষণে এসিড ফস ব্যবস্থেয়।

 

ক্যামোমিলাঃ রোগীর মানসিক প্রশান্তভাব ও কোষ্ঠকাঠিন্য থাকলে কখনোই ক্যামোমিলা প্রদান করা উচিত নয়।

 

ক্যামোমিলাঃ শিশু কোলে চড়ে বেড়াতে পছন্দ করে লক্ষণে ক্যামোমিলা বেশ ভালো কাজ করে।

 

ক্যামোমিলাঃ শিশুদের রাগ বা বিরক্তির কারণে যেসব রোগের সৃষ্টি হয়, যেমন শিশুকে ধমক দেয়া বা মাইর দেয়ার পর বা মা ঝগড়া করার পর শিশুকে দুধ পান করানো ইত্যাদি ক্ষেত্রে শিশুতে কোনো রাগ হলে সেসব ক্ষেত্রে ক্যামোমিলা ভালো ফল দেয়।

 

সিনাঃ অপ্রাপ্ত বয়সে মাসিক হলে সিনা উপকারী।

 

এসিড ফসঃ দীর্ঘদিনের শুক্রক্ষয়জনিত রোগে এসিড ফস ভালো কাজ করে।




চায়নাঃ প্রসবোত্তর প্রচুর রক্তস্রাবে চায়না অত্যন্ত সময়োপযোগী ওষুধ।

 

চায়নাঃ প্রচন্ড ক্ষিধে স্বত্বেও আহারে অরূচি হলে চায়না বেশ ভালো কাজ করে।

 

চায়নাঃ শুক্রক্ষয়জনিত রোগের তরুণ উপসর্গে চায়না বেশ ভালো কাজ করে।

 

মেডোরিনামঃ পুরাতন সন্ধিবাত, ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র সন্ধিবাত, সর্বাঙ্গের বাত ও স্নায়ুশুলে মেডোরিনাম প্রয়োগে উপকার পাওয়া যায়।

 

সার্সাপেরিলাঃ গ্রীষ্মকালে ছোট ছোট ফোঁড়ায় বা গর্মী ফোঁড়ায় যখন আর্নিকা মন্ট উপকার না করে তখন সার্সাপেরিলায় উপকার হয়।

 

সিফিলিনামঃ সিফিলিসের রোগীর দেহে জন্মের পর থেকেই নানা ধরনের ক্ষত,  চর্ম রোগ ও দূর্গন্ধ দেখা দেয়, যা দেহের অস্থি পর্যন্ত আক্রমণ করে লক্ষণে সিফিলিনাম বিশেষ ফলপ্রদ।

 

এনাকার্ডিয়াম ওরিঃ রোগী সর্বদা ক্ষুধায় কাতর থাকে ও খাওয়ার সময় ভালো বোধ করে, কিন্তু খাদ্য হজমের সময় খারাপ বোধ করে এমন লক্ষণে এনাকার্ডিয়াম ওরি বেশ ভালো কাজ করে।

 

এমিল নাইট্রেটঃ সন্তান প্রসবের পর তড়কা, খিঁচুনি সহ রক্তস্রাব হলে এমিল নাইট্রেটের ঘ্রাণে বিশেষ উপকার হয়।

 

ক্যালক্যারিয়া কার্বঃ পিত্তজনিত শূলবেদনায় ক্যালক্যারিয়া কার্ব আমাকে কখনো বিমুখ করেনি।

 

কলচিকামঃ ঘ্রাণ শক্তি অত্যন্ত প্রখর লক্ষণে কলচিকাম ২০০ থেকে প্রয়োজনে উচ্চশক্তি বিশেষ উপকারী।

 

ক্রিয়োজোটঃ প্রস্রাব করার স্বপ্ন দেখে যারা বিছানায় প্রস্রাব করে তাদের ক্ষেত্রে কিয়োজোট বিশেষ ফলপ্রদ।




কিয়োজোটঃ যারা স্নায়বিক প্রকৃতির, কোপন স্বভাব ও শীঘ্র শীঘ্র দন্ত ক্ষয় হয় তাদের ক্ষেত্রে ক্রিয়োজোট অত্যন্ত উপযোগী।

 

জিজিয়াঃ নিদ্রাকালেও কোরিয়াজনিত অঙ্গসঞ্চালন থাকলে জিজিয়া প্রযোজ্য।

 

পালসেটিলাঃ নাকে ঘ্রাণের অভাব দেখা গেলে পালসেটিলা বিশেষ ফলপ্রদ।

 

সাইলিশিয়াঃ পায়ের পাতায় দূর্গন্ধযুক্ত ঘাম যার জন্য অনেকের পায়ের আঙুলের ফাঁকে ফাঁকে ক্ষত সৃষ্টি করে, এই ক্ষেত্রে সাইলিশিয়া ১এম ১৫ দিন পরপর দুই মাত্রা সেবন করে তারপর ১০এম এবং পরে উচ্চশক্তি প্রযোজ্য।

 

সিমিসিফিউগাঃ ঘাড় ও পিঠের আড়ষ্টতায় সিমিসিফিউগা ৩০ শক্তি ১ ঘন্টা পরপর সেবন করলে ভালো ফল দেয়।

 

স্ট্রনসিয়াম কার্বঃ অস্ত্রোপচারের পর রোগী অতিশয় অবসন্নতা বোধ করলে, হিমাঙ্গতা থাকলে, রক্ত চুইয়ে পড়লে এমনকি শ্বাস-প্রশ্বাসও খুব শীতল বোধ হলে স্ট্রনসিয়াম কার্ব প্রয়োগ করতে হবে।

 

হাইপেরিকামঃ দেহের কোনো আক্রান্ত স্থানে উত্তাপে উপশম লক্ষণে হাইপেরিকাম বিশেষ ফলপ্রদ।

 

হাইপেরিকামঃ মেরুদন্ডের আঘাতে, বিশেষ করে লাঙ্গুলাস্থি বা কিকসিক্সে আঘাত লাগলে হাইপেরিকাম ভালো কাজ করে।

 

আর্কটিয়াম ল্যাপ্পাঃ যাদের বারবার স্ফোটক হয় আর্কটিয়াম ল্যাপ্পা সেবনে তাদের স্ফোটকপ্রবণতা দূর হয়ে যায়।

 

আর্নিকা মন্টঃ বাহ্যিক ইঞ্জুরি যেমন ঘুঁষি বা পাঁজরে আঘাতে চিড় খাওয়া বা অন্য কোনো আঘাতের কারণে প্লিউরো-নিউমোনিয়া হলে আর্নিকা মন্ট ভালো ফল দেয়।

 

ইউপেটোরিয়াম পার্ফঃ পুরুষের ধ্বজভঙ্গ ও বন্ধ্যাত্বে ইউপেটোরিয়াম পার্ফ উপকারী।

 

ইউপেটোরিয়াম পার্ফঃ মহিলাদের জরায়ু পেশি ঠিক মতো সংকুচিত না হলে ইউপেটোরিয়াম পার্ফ বিশেষ উপযোগী।

 

একালিফা ইন্ডিকাঃ মুখ দিয়ে রক্ত উঠা রোগে একালিফা ইন্ডিকা’র ব্যবহার স্বার্থক।

রক্তপিত্ত রোগই হোক বা অন্য যেকোনো কারণেই হোক, মুখ দিয়ে রক্ত উঠলে একালিফা ইন্ডিকা উপযোগী হবে।




একোনাইটঃ ব্রঙ্কাইটিস এবং তরুণ বাত-ব্যাধিতে ব্রায়োনিয়া নির্দেশিত হলেও অনেক সময় তা প্রয়োগে কোনো কাজ হয়না। কিন্তু প্রাথমিকভাবে একোনাইট প্রয়োগ করে পরবর্তীকালে ব্রায়োনিয়া প্রয়োগ করলে উপকার দর্শে।

 

এগনাস ক্যাস্টাসঃ যেসব যুবক অল্প বয়সে হস্তমৈথুন করে বৃদ্ধের মতো আকৃতি প্রাপ্ত হয়েছে এবং স্মৃতিশক্তি লুপ্ত হয়েছে তাদের ক্ষেত্রে এগনাস ক্যাস্টাস বিশেষ ফলপ্রদ।

 

এপিজিয়া রিপেন্সঃ কিডনীতে পাথর, মূত্রকষ্ট, মূত্রকৃচ্ছ এবং মূত্রকুন্থন, প্রস্রাবে রক্তের মতো তলানি এবং সেই সাথে ভয়ানক মূত্রকষ্টে এপিজিয়া রিপেন্স মাদার ১০ ফোঁটা করে দিনে ৬ বার খাইয়ে রোগীকে আরোগ্য করা সম্ভব হয়েছে।

 

এপিজিয়া রিপেন্সঃ ইউরিক এসিড পাথুরিতে এপিজিয়া রিপেন্স সমধিক উপযোগী। একটি রোগীকে ২০ ফোঁটা মাত্রায় দিবসে ৬ বার করে এই ওষুধ সেবন করতে দিয়ে প্রচুর পরিমাণে বালির মতো গুঁড়ো প্রস্রাবের সাথে নির্গত হয়ে প্রস্রাবের জ্বালা-যন্ত্রণা ও কুন্থন এক কথায় সকল যন্ত্রণাই দূর হয়েছিল।

 

এপোসাইনাম এন্ড্রোসিমিফোলিয়ামঃ আমি লক্ষণের বিশেষ সাদৃশ্য দেখে দুজন রিউমেটিক গেঁটে বাতের রোগীকে এপোসাইনাম এন্ড্রোসিমিফোলিয়াম সেবন করিয়ে আরোগ্য করেছিলাম।

 

এপোসাইনাম এন্ড্রোসিমিফোলিয়ামঃ সন্ধির তরুণ বেদনার সাথে খল্লী, পিত্তযুক্ত মল ও দাঁতে চলিষ্ণু বেদনা এপোসাইনাম এন্ড্রোসিমিফোলিয়ামের বিশেষ লক্ষণ।

 

এপোসাইনাম ক্যানাবিনামঃ হৃদরোগজনিত শোথে এপোসাইনাম ক্যানাবিনাম পরম উপকারী।

 

এবিস ক্যানঃ অত্যন্ত ক্ষুধাবোধ, মাংস, চাটনি, মূলা প্রভৃতি দুষ্প্রাপ্য জিনিষে স্পৃহা, পাকস্থলী ও তলপেটে জ্বালা, সেই সাথে বুকে ও ডান স্কন্ধাস্থির নিচের দিকে যন্ত্রণা, কোষ্ঠবদ্ধতা ও উদররোগ এবিস ক্যান এর পরিচায়ক লক্ষণ।

 

এরিনজিয়ামঃ এপিডেমিক ইনফ্লুয়েঞ্জা রোগে গলা জ্বলে, গলা ব্যথা, ঘন ঘন শুষ্ক কাশি ও হলদে চটচটে গয়ার উঠতে থাকলে এরিনজিয়াম বিশেষ উপকার দেয়।

 

এরিনজিয়ামঃ যাদের গ্লিট রোগ প্রতি শীত ঋতুতে পুনঃ পুনঃ প্রদর্শিত হয় তাদের পক্ষে এটি বিশেষ উপকারী।

 

এসক্লিপিয়াস কর্নঃ কলচিকাম বিফল হলে বাতরোগে এসক্লিপিয়াস কর্ন অবশ্যই পরীক্ষা করে দেখা প্রয়োজন।

 

এসক্লিপিয়াস কর্নঃ বাতরোগে সিমিসিফিউগা বিফল হলে এসক্লিপিয়াস কর্ন পরীক্ষা করে দেখা প্রয়োজন।

 

এসক্লিপিয়াস কর্নঃ হৃদরোগজনিত শোথেও এসক্লিপিয়াস কর্ন এর উপশমকারিতা আছে।




ওলিয়াম ক্যাজুপুটিঃ আমি একবার আপেক্ষিক হিক্কায় প্রথম দশমিক শক্তি ক্যাজুপুটি অয়েল পাঁচ ফোঁটা মাত্রায় ব্যবহার করাতে কয়েক মিনিটের মধ্যেই রোগী হিক্কায় বা হেচকি’তে শান্তি লাভ করেছিল।

 

কুপ্রাম আর্সঃ আমি কুপ্রাম আর্স ওষুধের ষষ্ঠ দশমিক ক্রমের বিচূর্ণ ব্যবহার করে সত্বর উপকার পেয়েছি। আমি বালকদের জন্য এই ওষুধ জলে মিশিয়ে এবং যুবকদের জন্য শুষ্ক ওষুধ ব্যবস্থা করে সবিশেষ উপকার দেখতে পেয়েছি।

 

কুপ্রাম আর্সঃ তীব্র ওলাউঠা রোগগ্রস্থ কয়েকজন রোগীকে আমি কুপ্রাম আর্স সেবন করিয়ে বিলক্ষণ ফলপ্রাপ্ত হয়েছি।

 

কুপ্রাম এসেটিকামঃ উদ্ভেদ বিলোপ বা দন্তোদগমবশতঃ মস্তিষ্কবিকারে ও আক্ষেপ সংযুক্ত মেনিনজাইটিস রোগে কুপ্রাম এসেটিকাম বিশেষ ফলপ্রদ।

 

কুপ্রাম মেটঃ কুপ্রাম মেটের লক্ষণ স্তবকে স্তবকে ও পর্যায়ক্রমে প্রকাশ পায়। এই ওষুধটিই এটির প্রকৃতিগত লক্ষণ।

 

ক্যালি ব্রোমঃ অপরিমিতাহারী যুবকদের মুখব্রণে ক্যালি ব্রোমের তৃতীয় ক্রমের বিচূর্নের উপকারিতা রয়েছে।

 

ক্যালি সায়ানাইডঃ আকষ্মিক সুতীব্র আমাশয় প্রদাহেও ক্যালি সায়ানাইডে উপকার পাওয়া যায়।

 

ক্যালি সায়ানাইডঃ হৃৎপিন্ডের ক্রিয়াবিকারে পর্যায়ক্রমে ধীর ও বিষম নাড়ী এবং হৃৎকম্প লক্ষণে আমি কয়েকবার ক্যালি সায়ানাইড ব্যবহার করে ফলপ্রাপ্ত হয়েছি।

বিধান-বিকারবিশিষ্ট হৃদরোগে ও স্নায়বিক লক্ষণের প্রাবল্য থাকলেও এই ওষুধ ‍উপকারী।

 

ক্যালি হাইড্রিয়োডিকামঃ ইউরিয়া নামক মূত্রবিষ নিঃসরণে ক্যালি হাইড্রিয়োডিকাম বিশেষ ফলপ্রদ। এই ওষুধ ব্যবহার করে নতুন ও পুরাতন গেঁটে বাত রোগ আরোগ্য লাভ করেছে।

এটি আভ্যন্তরীণ ও বাহ্য উভয় প্রকারেই প্রয়োগ করা যেতে পারে।

 

কোকাঃ স্নায়বিক উত্তেজক দ্রব্যের অপব্যবহারজনিত রোগে কোকা উপযোগী।

 

কোকাঃ শ্বাসকৃচ্ছে কোকার মাতৃকারিষ্ট অধিক উপযোগী।

 

ক্লোরাল হাইড্রেটঃ অত্যন্ত শ্বাস-কৃচ্ছ এবং সেই সাথে বুকে অত্যন্ত জ্বালা-যন্ত্রণা থাকলে ক্লোরাল হাইড্রেট ৫ গ্রেন মাত্রার সেবনে অত্যন্ত ‍উপকার হয়।

 

ক্লোরাল হাইড্রেটঃ আঁতুড়ে শিশুর টিটেনাস কিংবা দন্ত নির্গমনকালে তড়কায় ক্লোরাল হাইড্রেট অতিশয় ফলপ্রদ।

 

কোলিনসোনিয়া ক্যানঃ অনেক জরায়ু রোগ সরলান্ত্রের রোগ থেকে জন্মে, এসব পীড়ায় কোলিনসোনিয়া ক্যান বিশেষ ফলপ্রদ।

 

গসিপিয়াম হার্বেশিয়ামঃ বেদনাসংযুক্ত ও বেদনাবিহীন স্বল্প রজঃস্রাবে গসিপিয়াম হার্বেশিয়াম ব্যবহারে সুফল মেলে।




চিনিমাম সাল্ফঃ রক্ত সঞ্চয়জনিত শীরঃপীড়ায় কর্ণনাদ লক্ষণ থাকলে আমি চিনিমাম সাল্ফের ৬ষ্ঠ ক্রম ওষুধ ব্যবহারে ভালো ফল প্রাপ্ত হয়েছি।

 

চিমফাইলাঃ মূত্রমেহরোগে চিমফাইলা বিশেষ ফলপ্রদ।

 

জুগল্যান্সঃ পৈত্তিক অতিসার ও রক্তাতিসারে জুগল্যান্সের তৃতীয় ক্রম ব্যবহার করে আমি ফলপ্রাপ্ত হয়েছি।

 

জ্যাবোরান্ডিঃ প্রথম শক্তির জ্যাবোরান্ডিই বিভিন্ন রোগের ক্ষেত্রে অধিকতর উপযোগী বলে আমি বিশ্বাস করি।

 

জ্যাবোরান্ডিঃ যেসব স্ত্রীলোকের গাত্র ত্বক রুক্ষ ও ঘর্মস্রাব শুন্য, মুখ পরিশুষ্ক এবং সাধারনত গ্রন্থিগুলো অপেক্ষাকৃত নিষ্ক্রিয়, যাদের সচরাচর অতি অল্প পরিমাণ রজঃস্রাব হয় ও রজঃস্রাবের পরিমাণের স্বল্পতানুসারে ধামনিক রক্তপূর্ণতার লক্ষণ-

প্রকাশ পায় তাদের ঋতু প্রকাশিত হবার ১ সপ্তাহ পূর্ব থেকে জ্যাবোরান্ডির কয়েক বিন্দু অরিষ্ট প্রতিদিন চারবার সেবন করতে দিলে যথা পরিমাণ রজঃনিঃসৃত ও শ্বেত নির্গত হয়ে থাকে।

 

টার্নেরাঃ টার্নেরা স্ত্রী পুরুষ উভয়েরই জননেন্দ্রিয়ের উত্তেজক ওষুধ।

 

ডিজিটালিসঃ অতিরিক্ত পরিশ্রম, অতিরিক্ত মানসিক উত্তেজনা ও কোনো কোনো প্রকার মস্তিষ্কের উপদাহ প্রভৃতি কারণে হৃৎপিন্ড উত্তেজিত ও বিবর্ধিত বেগে স্পন্দিত হলে এবং মস্তকে রক্ত সঞ্চয়, কর্ণনাদ ও মুখ-রাগাদি জন্মালে হৃদরোগে ডিজিটালিসের উচ্চক্রম ব্যবস্থেয়।

 

ডিজিটালিসঃ হৃৎপিন্ডের দৌর্বল্যজনিত সর্বাঙ্গীন দূর্বলতায় ডিজিটালিস ৩এক্স ও ফেরাম ফস ১এক্স পর্যায়ক্রমে ব্যবহার করলে আরোগ্য লাভ হয়।

 

প্ল্যান্টেগোঃ দাঁত ব্যথায় প্ল্যান্টেগোর সাথে অন্য কোনো হোমিওপ্যাথিক ওষুধের তুলনা হয় না।

 

ব্যাপ্টিসিয়াঃ জীবনীশক্তির ক্ষীণতা ও দূর্বলতাবিশিষ্ট সকল প্রকার জ্বরের পূর্বরূপ ও প্রথম অবস্থায়ই ব্যাপ্টিসিয়া ওষুধটি অতিশয় ফলপ্রদ।

 

ব্যাপ্টিসিয়াঃ মানসিক অবসাদ, কুসংস্কার, রাত জাগা, উপবাস ও অনুগ্র অপ্রাদাহিক জ্বরজনিত আশঙ্কিত গর্ভস্রাবে ব্যাপ্টিসিয়া বিশেষ উপযোগী।

 

ব্যাপ্টিসিয়াঃ রাত জাগরণ, উপবাস, উৎকণ্ঠা, দুঃসংবাদ প্রভৃতি কারণে গর্ভনাশের উপক্রম হলে ব্যাপ্টিসিয়া চমৎকার ফলপ্রদ।

 

ব্যারাইটা আয়োডাটাঃ তালুমূল, অন্ড, প্রোস্টেট প্রভৃতি গ্রন্থির অর্বুদে বা টিউমার হলে ব্যারাইটা আয়োডাটা সর্বোৎকৃষ্ট ওষুধ।

 

বোরাক্সঃ আমি একজন রোগিনীর ঝিল্লিবিশিষ্ট রজঃকৃচ্ছ বোরাক্স দিয়ে সম্পূর্ণ আরোগ্য করেছিলাম।

 

ভাইবার্নামঃ গর্ভবতী নারীদের পেটে ও পায়ে পেশি সংকোচন হলে ভাইবার্নাম মাদার প্রয়োগে খুব দ্রুত নিরাময় হয়।




মাইগেল ল্যাসিওডোরাঃ নিদ্রাবস্থায় রোগের বিরাম ও প্রাতঃকালে বৃদ্ধি কোরিয়া রোগ মাইগেল ল্যাসিওডোরার বিশেষ প্রয়োগ লক্ষণ।

 

লাইকোপাসঃ আমি এক পাইন্ট জলে এক আউন্স লাইকোপাস ভিজিয়ে ফান্ট তৈরী করে তা থেকে দুই ড্রাম মাত্রায় প্রতিদিন ৫ বার সেবন করিয়ে কয়েক সপ্তাহে একজন ডায়াবেটিস রোগীকে আরোগ্য করেছিলাম।

 

লাইকোপাসঃ হৃৎপিন্ডের অতিক্রিয়া, ধাতুগত দূর্বলতা সহকারে আমবাতিক পীড়া, হৃৎপিন্ডের অবসাদক বা উত্তেজক দ্রব্যাদি ব্যবহার প্রভৃতি শারিরীক কারণে হৃৎপিন্ডের দূর্বলতা ও উপদাহিতা জন্মালে উচ্চক্রমে লাইকোপাস ফলপ্রদ।

 

লিলিয়াম টিগঃ ডিম্বাশয়ের স্নায়ুশূলে লিলিয়াম টিগ প্রয়োগে দ্রুত আরোগ্যকর ফল পাওয়া যায়।

 

লিলিয়াম টিগঃ স্ত্রী জননেন্দ্রিয় ও হৃৎপিন্ডে লিলিয়াম টিগের বিশেষ ক্রিয়া দর্শে।

 

লোবেলিয়া ইনফ্লেটাঃ অতিরিক্ত হরিৎ চা, তামাক বা জঘন্য মদিরা পান -জনিত অগ্নিমান্দ্যে লোবেলিয়া ইনফ্লেটা বিশেষ উপকারী।

 

সাইপ্রিপেডিয়ামঃ মস্তিষ্ক ও স্নায়ুমন্ডলের ক্রিয়া বিকার অথবা মানসিক উত্তেজনায় অনিদ্রা হলে কয়েক ফোঁটা মাত্রায় সাইপ্রিপেডিয়ামের মূলারিষ্ট বা প্রথম দশমিক ক্রম বারবার সেবনে সত্বর আরোগ্য হয়।

 

স্যান্টোনাইনঃ সিনার চেয়ে স্যান্টোনাইন সর্বাপেক্ষা উত্তম কৃমিনাশক। এর সাহায্যে অন্ত্রের সকল কৃমিই বিনষ্ট হয়।

 

স্যান্টোনাইনঃ স্নায়বিক দূর্বলতাজনিত অন্ধত্বের ক্ষেত্রে দৃষ্টি ফিরিয়ি দিয়েছে স্যান্টোনাইন ওষুধ।

 

হাইড্রাসটিস ক্যানঃ জরায়ুগ্রীবার ক্ষতসংযুক্ত কন্দ বা প্রোল্যাপ্স রোগেও হাইড্রাসটিস ক্যান ফলপ্রদ নয়।




হাইড্রাসটিস ক্যানঃ স্তনগ্রন্থির ক্যান্সার রোগে হাইড্রাসটিস ক্যান বিশেষ উপকারী।


আজ এখানেই শেষ করছি। ফিরে আসবো অন্য দিন নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে। সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। করোনাকে ভয় নয় – সাবধানতা ও সচেতনতাই যথেষ্ট।

এই পোস্টটি যদি আপনার ভালো লাগে এবং প্রয়োজনীয় মনে হয় তবে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না যেন।

 

[বিশেষ দ্রষ্টব্য: এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।]

অ্যাডমিনঃ

আপনাদের সাথে রয়েছি আমি মোঃ আজগর আলী। ছোট বেলা থেকেই কম্পিউটারের প্রতি খুব আগ্রহ ছিল। মানুষের সেবা করারও খুব ইচ্ছে। আর তাই গড়ে তুলেছি স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক ওয়েবসাইট সানরাইজ৭১। আশা করছি, আপনারা নিয়মিত এই ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন এবং ই-স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন:

সাম্প্রতিক পোস্টসমুহ

আজকের দিন-তারিখ

  • সোমবার (রাত ১:৫৯)
  • ২৩শে নভেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
  • ৭ই রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরি
  • ৮ই অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)