আজ বুধবার,২৯শে বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,১২ই মে ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

Sample Image of Student

আপনার সন্তানের প্রতি এই বিষয়গুলোতে দয়া করে নজর রাখুন

সন্তান ও আপনার কর্তব্য


সানরাইজ৭১ এ আপনাকে স্বাগতম। আজ আমরা আলোচনা করবো সন্তানের প্রতি মা-বাবার কিছু দায়িত্ব ও কর্তব্য নিয়ে। আসলে বর্তমানে আমরা সবাই ভার্চুয়াল লাইফের সাথে যুক্ত। এই ভার্চুয়াল লাইফে ভালো-মন্দ দুটোই আছে। তাই আপনার সন্তানের কাছে ভার্চুয়াল ইন্সট্রুমেন্টগুলো (মোবাইল, কম্পিউটার, গেমিং) তুলে দেয়ার পূর্বে অবশ্যই নিম্নোক্ত বিষয়গুলোর উপর নজর রাখুন। তো আর কথা নয় – চলে যাচ্ছি মূল আলোচনায়।

 

১। আপনার সন্তানের কাছে এন্ড্রুয়েড মোবাইল থাকতেই পারে। এটা দোষের কিছু নয়। কিন্তু খেয়াল করুন যে, আপনার সন্তান সেটার সৎ ব্যবহার করছে কিনা। এই জন্য আপনার সন্তানের মোবাইল ফোনটি মাঝে মাঝে চেক করুন। আপনার সন্তানের সামনে নয় – সেটা গোপনে করুন। আপনি না বুঝলে যারা এই সম্পর্কে জানে তাদের দিয়ে বিষয়টি দেখুন। যদি খারাপ কোন কিছু পান তবে সরাসরি শাসন করতে যাবেন না। পরোক্ষভাবে সন্তানকে বুঝিয়ে বলুন। কথা যদি একেবারেই না শুনে তবে শাসন করতে কখনো ভয় করবেন না।

২। আপনার সন্তানের মোবাইলে কি কি গেমস আছে সেগুলো একটু বোঝার চেষ্টা করুন। কিছু গেমস আছে যা পর্ণ ভিডিওর মতো। সেগুলো অচিরেই আপনার সন্তানের মস্তিষ্কে নেতিবাচক আইডিয়াগুলোর অনুপ্রবেশ ঘটাবে। আবার কিছু গেমস আছে যা অ্যাডভেঞ্চার এর ন্যায়। এগুলো থেকে বিরত রাখা মা-বাবা হিসেবে আপনার কর্তব্য।

৩। সন্তানকে আপনার সাথে মসজিদে নিয়ে যান। সকালে ঘুম থেকে ডেকে তুলে দেন। আপনি যে আপনার সন্তানের প্রতি যত্নশীল সেটা সে যেনও বুঝতে পারে। তাহলে তার মধ্যে ইতিবাচক পরিবর্তন আসাটা স্বাভাবিক হয়ে উঠবে।

৪। আপনার সন্তান মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কার কার সাথে বেশি কথা বলে সেটা বুঝার চেষ্টা করুন। প্রয়োজনে কন্টাক্ট নাম্বারগুলো চেক করুন। যদি সব ইতিবাচক থাকে তাহলে কোন পদক্ষেপ নেয়ার প্রয়োজন নেই। নেতিবাচক হলে তো পদক্ষেপ নিবেন অবশ্যই। তবে, কাউকে যদি ভালোবাসে সেটাকে একটু ছাড় অবশ্যই দেবেন। কিন্তু যদি পড়াশোনার ক্ষতি হয় এবং আপনার সন্তান যদি সেদিকটায় ডাইভার্ট হয়ে যায় তবে কখনোই তা গ্রহণযোগ্য নয়।

৫। আপনার সন্তান কার কার সাথে ঘুরাঘুরি করে সেদিকটাও মাথায় রাখবেন। কারণ, সঙ্গদোষে লোহা ভাসে – এটা তো আমরা সবাই জানি। যদি বদ-মাইশ পোলাপানের সাথে মেলামেশা করে তবে সেখান থেকে আপনার সন্তানকে হেফাজতে রাখার দায়িত্বটা কিন্তু মা-বাবা হিসেবে আপনাদেরই।

৬। কোন সময়ই সন্তানকে খুব বেশি শাসন করতে যাবেন না। কারণ, খুব বেশি কোন কিছুই ভালো নয় কিন্তু। আপনার সন্তানের মনটাকেও আপনাদের (মা-বাবা) বুঝতে হবে। সন্তানের চাওয়া-পাওয়াগুলোও কিন্তু পূরণের দায়িত্ব আপনাদের উপর।

৭। মোবাইল ফোন, কম্পিউটার কিংবা এই জাতীয় ডিভাইসগুলোর কেমন ব্যবহার করছে আপনার সন্তান সেদিকে একটু বেশিই নজর রাখবেন। কারণ, এগুলোর মাধ্যমে খুব সহজেই চরিত্রের অধঃপতন ঘটানো যায় যা অন্য ক্ষেত্রে এমনভাবে সম্ভব হয় না। আর এই কাজটি সবার অজান্তেই করা যায়। আপনার সন্তান রাতে কখন ঘুমায় সেদিকটাও নজরে রাখবেন। বিরুপ কোন কিছু বুুঝতে পারলে অবশ্যই ব্যবস্থা নিবেন। বাকিটা আল্লাহর ইচ্ছা। তবে, মা-বাবা হিসেবে সন্তানের উপর আপনাদের যত্নের যাতে কোন কমতি না থাকে।

ইনশাআল্লাহ্ আপডেট হতে পারে…….

 

সবাই ভালো থাকবেন। আজ এখানেই শেষ করলাম। করোনাকে ভয় নয় – সাবধানে থাকুন এবং সচেতন থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন।

এই পোস্টটি যদি আপনার ভালো লাগে এবং প্রয়োজনীয় মনে হয় তবে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না যেন।

অ্যাডমিনঃ

আপনাদের সাথে রয়েছি আমি মোঃ আজগর আলী। ছোট বেলা থেকেই কম্পিউটারের প্রতি খুব আগ্রহ ছিল। মানুষের সেবা করারও খুব ইচ্ছে। আর তাই গড়ে তুলেছি স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক ওয়েবসাইট সানরাইজ৭১। আশা করছি, আপনারা নিয়মিত এই ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন এবং ই-স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন:

Subscribe: Dinajpur School

সাম্প্রতিক পোস্টসমুহ

আজকের দিন-তারিখ

  • বুধবার (রাত ৮:৪২)
  • ১২ই মে ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ২৯শে রমজান ১৪৪২ হিজরি
  • ২৯শে বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ (গ্রীষ্মকাল)