আজ বুধবার,২৯শে বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,১২ই মে ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আঘাত পেলে হোমিওপ্যাথিতে চিকিৎসা নিন – সুস্থ্য থাকুন

আঘাত পেলে যা করবেন

 

 

রোগী বিবরন : বিভিন্ন প্রকারে আঘাত লাগিতে পারে। হোচট লাগিয়া পরিয়া যাইয়া কিল, ঘুসি বা লাঠির আঘাত, ঢিলার আঘাত, কোন প্রকার চাপ লাগা, হোঁচট লাগা, থেত্লে লাগা, ছেঁচিয়া যাওয়া। আরো নানাবিধ কারনে আঘাত লাগিতে পারে।

চিকিৎসা
আর্নিকা মন্ট (Arnica Mont) : শরীরের যেকোন স্থানে, যেকোন প্রকারেই আঘাত হউক না আর্নিকাই তাহার প্রধান ঔষধ। আঘাত বা অতিরিক্ত পরিশ্রম জনিত ব্যথায় আর্নিকা স্মরণ করিবেন।

সেবন বিধি : শক্তি 6 বা 30 তিন ঘন্টা অন্তর। পুরাতন আঘাতে 200, 1m বা আরো উচ্চ শক্তি।

হেলিবোরাস (Halleborus) : মাথায় আঘাত পাইয়া রোগী অজ্ঞান হইলে আর্নিকা সেবনে স্মপূর্ণ উপকার না হইলে হেলিবোরাস আরোগ্য করিতে পারে।

সেবন বিধি : শক্তি 6, 30 বা 200 এক দুই ঘন্টা অন্তর। বহু দিন পূর্বে মাথায় আঘাত লাগিয়া কোন রোগের উৎপত্তি হইলে হেলিবোরাস তা আরোগ্য করিতে পারে।

লিডম পাল (Lidum Pal) : যদি দেখা যায় কোন স্থানে আঘাতের কাল শিরা অর্থাৎ আঘাত স্থানে রক্তের কাল দাগ লাগিয়া থাকে। ইহাতে লিডম অব্যর্থ ।

সেবন বিধি : শক্তি 6, 30 দিনে তিন বার। 200 শক্তি প্রত্যহ দুই মাত্রা। পুরাতন আঘাতে 1m বা 10m সকাল বিকাল দুই মাত্রা। প্রথমে আর্নিকা সেবনে ব্যথার সম্পূর্ন উপশম না হইলে লিডমে তা আরোগ্য করতে পারে।

ক্যালেন্ডুলা (Calendula) : শরীরের কোন স্থান কাটিয়া, ফাটিয়া বা চিড়িয়া রক্ত পরিতে থাকিলে কালেন্ডুলা Q তুলায় করিয়া আহত স্থানে লাগাইয়া খুব শীঘ্র রক্ত পড়া বন্ধ হয়। সেই সঙ্গে ইহার 6 বা 30 শক্তির ২/১ ঘন্টা অন্তর সেবনে আরো শীঘ্র উপকার পায়।

হাইপেরিকাম (Hypericum) : হাতে বা পায়ের আঙ্গুলে আঘাত লাগিয়া ছেঁচিয়া গেলে হাইপেরিকাম উপকারী। আহত ক্ষত স্থানে বেদনা যন্ত্রনা হইয়া ধনুষ্টংকারের উপক্রয় হইলেও হাইপেরিকাম ফলদায়ক।

সেবন বিধি : শক্তি 30 বা 200 দুই, তিন ঘন্টা অন্তর সেবনে ও ইহার Q গরম জলে মিশাইয়া আঘাত স্থানে লাগাইলে শীঘ্র উপকার হয়।

রাস টক্স (Rhus) : ভারী দ্রব্য উত্তোলন বা নাড়াচাড়া করিয়া ঘাড়ে, পিঠে, কোমরে বা শরীরে ব্যথা হইলে রাস টক্স উপকারী।

সেবন বিধি : শক্তি 6, 30 বা 200 তিন ঘন্টা অন্তর ।

বেলিস পিরেনিস (Bellis Perenis) : হাতের কব্জি, পায়ের গোড়ালী বা শরীরের কোন সন্ধি মচকাইয়া বা থেতলাইয়া বেদনা যন্ত্রনা হইলে বেলিসে উপকার হয়।

সেবন বিধি : শক্তি 3x বা 6, ২/৩ ঘন্টা অন্তর সেবন ও ইহার Q বাহ্যিক প্রয়োগে উপকার হয়। শরীরের কোন স্থানে মাংস পেশীতে পুরাতন আঘাত জনিত কারনে নতুন করিয়া ব্যথা হইলে ইহার Q বাহ্যিক ব্যবহারে উপকার হয়।

রুটা (Ruta) : হাতের কব্জি, গোড়ালী বা জানু সন্ধি মচকাইয়া যাওয়ার ফলে আহত স্থান ফুলিয়া ব্যথা হইলে রুটা আরোগ্য করিত পারে।

সেবন বিধি : শক্তি 30 বা 200 দিনে দুই মাত্রা সেবন ও উহার Q বাহ্যিক ব্যবহার বিধেয় ।

এমন মিউর (Ammon Mur) : পায়ের গোড়ালী, হাতের কব্জি বা শরীরের কোন সন্ধি বহু পূর্বে মচকাইয়া যাইবার ফলে, মাঝে মাঝে ব্যথা হইলে এমন মিউর উপকারী।

সেবন বিধি : শক্তি 200, 1m বা 10m সপ্তাহ, পক্ষকাল বা মাসান্তে সকাল বিকাল দুই মাত্রা।

সিস্ফাইটম (Symphytum) : আঘাতের ফলে হাড় ভাঙ্গিয়া গেলে হাড় জোড়াতে সিস্ফাইটম উত্তম কার্যকারী ঔষধ।

সেবন বিধি : শক্তি 6 বা 30 দিনে তিন বার।

বাইওকেমিক চিকিৎসা
ফেরাম ফস (Ferrum Phos) : সর্ব প্রকার আঘাতে ফেরাম ফস কার্যকারী। কোন স্থান কাটিয়া বা ফাটিয়া রক্ত স্রাব হইলে ইহার 2x বা 3x বিচুর্ণ আহত স্থানে ছড়াইয়া বাধিয়া দিলে রক্ত পড়া বন্ধ হয়।

সেবন বিধি : শক্তি 6x ১-৪ বড়ি এক মাত্রা বয়স অনুপাতে তিন ঘন্টা অন্তর।

নেট্রাম সালফা (Natrum Sulph) : মস্তকে আঘাত লাগার উত্তম ঔষধ।মস্তকে আঘাত লাগার পর কোন প্রকার রোগ দেখা দিলে নেট্রাম সালফে আরোগ্য হয়।

সেবন বিধি : শক্তি 6x বা 12x পুরাতন রোগে আরো উচ্চ শক্তি। ১-৪ বড়ি এক মাত্রা বয়স অনুপাতে দিনে দুই বার। হোমিওপ্যাথিক মতে 30, 200 বা আরো উচ্চ শক্তি ফলদায়ক।

ক্যালকেরিয়া ফস (Calcarea Phos) : জীর্ণ শীর্ণ রোগীদের কোন প্রকার আঘাত লাগিয়া হাড় ভাঙ্গিয়া গেলে এবং সেই হাড় জোড়িতে বিলম্ব হইলে ক্যালকেরিয়া ফস অব্যর্ধ।

সেবন বিধি : শক্তি 6x বা 12x ১-৪ বড়ি এক মাত্রা বয়ষ অনুপাতে প্রত্যহ দুইবার। হোমিও মতে 30 বা 200 ও উপকারী ।

পথ্য ও আনুষাঙ্গিক ব্যবস্থা
আঘাত লাগার স্থানে যথা সম্ভব তাড়া তাড়ি বরফ লাগাইবে। বরফের অভাবে ঠান্ডা জল পট্রি দেওয়া যেতে পারে। সজোরে আঘাত লাগিয়া হাড় ভাঙ্গিয়া গেলে সেই স্থানে দুই হাতে জোড়ে ধরিয়া ভাঙ্গা মুখ দুটি সোজা ভাবে একত্রিত করিয়া এ ভাঙ্গা স্থানের চতুর পার্শে বাঁশের কিংবা পাতলা কাঠ বাঁধিয়া দিবেন এবং তুলা দিয়া শক্ত করিয়া বাধিয়া রাখিবে।ভগ্ন স্থানটি সর্বদা স্থির ভাবে রাখিবেন। নড়াচড়া করিতে দিবেন না।

রাতে কি আপনাকে বোবা ধরে? তাহলে এখনই হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা নিন

রোগী বিবরন : রহিমা খাতুন ২৫ বৎসর স্বামী-স্ত্রী ঝগড়ার পর্যায়ে উত্তেজিত স্বামীর চপেটাঘাত (থাপ্পর) লাগে রহিমার কানে। ঘটনা ঘটেছিল তিন বৎসর পূর্বে। ঐ সয়ম স্থানীয় চিকিৎসা মোটামুটি ভালই ছিল ।বর্তমানে প্রায়ই মাথা ধরা থাকে। কানে কম শোনে। সর্বদা অস্বস্তি ভাব।আর্নিকা 10M সকালে মুখ প্রক্ষালনের পর ১ ঘন্টা পর পর দুই ডোজ।তিন সপ্তাহ পর সংবাদ বিষেশ কোন উপকার হয় নাই। হেলিবোরাস 10M উক্ত নিয়মে সেবন করিতে দেওয়ায় ১ মাস পর আরোগ্য সংবাদ পাই।

অ্যাডমিনঃ

আপনাদের সাথে রয়েছি আমি মোঃ আজগর আলী। ছোট বেলা থেকেই কম্পিউটারের প্রতি খুব আগ্রহ ছিল। মানুষের সেবা করারও খুব ইচ্ছে। আর তাই গড়ে তুলেছি স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক ওয়েবসাইট সানরাইজ৭১। আশা করছি, আপনারা নিয়মিত এই ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন এবং ই-স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করবেন।

One response to “আঘাত পেলে হোমিওপ্যাথিতে চিকিৎসা নিন – সুস্থ্য থাকুন”

  1. […] আঘাত পেলে হোমিওপ্যাথিতে চিকিৎসা নিন &#… […]

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন:

Subscribe: Dinajpur School

সাম্প্রতিক পোস্টসমুহ

আজকের দিন-তারিখ

  • বুধবার (রাত ৮:০৭)
  • ১২ই মে ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ২৯শে রমজান ১৪৪২ হিজরি
  • ২৯শে বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ (গ্রীষ্মকাল)