আজ শুক্রবার,১০ই বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,২৩শে এপ্রিল ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

www.sunrise71.com

শোথ রোগ (Edema) কি, এর লক্ষণ এবং হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা

 শোথ রোগের হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা

মদ্যপান, উদরাময়, ম্যালেরিয়ায় দীর্ঘদিন ভোগা, যকৃৎ-প্লীহার বৃদ্ধি প্রভৃতি কারনে শোথ রোগ দেখা দেয়। হাত-পা, মুখ-চোখ প্রভৃতি প্রত্যঙ্গ-এ পানি সঞ্চিত হওয়ার নাম শোথ।

হাত-পা বা মুখ-চোখ ফোলা, শরীরে জ্বালা বোধ, অবসন্নতা, কোষ্ঠকাঠিন্য, রক্তাল্পতা প্রভৃতি এ রোগের প্রধান প্রধান লক্ষণ।

 

চিকিৎসাঃ

যে-কোনো রকম শোথ রোগের ওষুধ আর্সেনিক ৬ বা ৩০।

সবচেয়ে উৎকৃষ্ট ওষুধ- এপোসাইনাম ১x।

হাত-পা ফুললে, প্রবল তৃষ্ণা থাকলে- অ্যাসেটিক অ্যাসিড ২০০।

প্রস্রাবের দোষে শোথ, গর্ভাবস্থায় শোধ, শরীরে বেদনা, শরীরে জ্বালা বোধ প্রভৃতি লক্ষণে- এপিস মেল ৬।

মূত্রপিণ্ড থেকে যদি রক্তস্রাব হয়- টেরিবিন্থিনা ৩।

রক্তাল্পতা, অবসন্নতা, কোষ্ঠকাঠিন্য প্রভৃতি লক্ষণে- ফেরাম মেট ৬।

 

আনুষঙ্গিক চিকিৎসাঃ

প্রস্রাব বেশি পরিমাণে হলে রোগ অনেকটা নিরাময় হয়। সেজন্য রোগীর যাতে প্রস্রাব বেশি হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখা দরকার। কাঁচা নুন খাওয়া একেবারে বন্ধ রাখতে হবে।

পুরনো চালের ভাত, মাংসের ঝোল, সজনে ডাঁটা, মানকচু, বেগুন, পটল প্রভৃতি খুব উপকার করে। মুগ বা মসুরের জুস শোথ রোগীর পক্ষে খুবই উপকারী।

 

[বিশেষ দ্রষ্টব্য: এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।]

অ্যাডমিনঃ

আপনাদের সাথে রয়েছি আমি মোঃ আজগর আলী। ছোট বেলা থেকেই কম্পিউটারের প্রতি খুব আগ্রহ ছিল। মানুষের সেবা করারও খুব ইচ্ছে। আর তাই গড়ে তুলেছি স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক ওয়েবসাইট সানরাইজ৭১। আশা করছি, আপনারা নিয়মিত এই ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন এবং ই-স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন:

Subscribe: Dinajpur School

সাম্প্রতিক পোস্টসমুহ

আজকের দিন-তারিখ

  • শুক্রবার (দুপুর ২:৪৫)
  • ২৩শে এপ্রিল ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ১০ই রমজান ১৪৪২ হিজরি
  • ১০ই বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ (গ্রীষ্মকাল)