আজ বুধবার,১১ই কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,২৭শে অক্টোবর ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

Sample Image of Black Fungus

ব্ল্যাক ফাংগাস (আরেক মহামারী) সম্পর্কে জানা সবার জন্য জরুরী

ব্ল্যাক ফাংগাস


সানরাইজ৭১ এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা আলোচনা নতুন আতঙ্ক ব্ল্যাক ফাংগাস নিয়ে। আশা করি, পোস্টটি সবার উপকারে আসবে। তো আর কথা নয় – সরাসরি যাচ্ছি মূল আলোচনায়।

মানুষের ভয় শেষ হবার কথা ছিল – কিন্তু করোনা তা শেষ করতে দিচ্ছে না। এর মধ্যে ভয়ংকার আরেকটি বিষয় সামনে আসছে, সেটা হলো ব্ল্যাক ফাংগাস।




ব্ল্যাক ফাংগাস যা বাংলায় কালো ছত্রাক। চিকিৎসা বিজ্ঞানের পরিভাষায় নাম হলো মিউকোরমাইকোসিস। করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেও মিউকোরমাইকোসিস নামের ছত্রাকের সংক্রমণে প্রাণ হারাচ্ছেন অনেকেই। করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষদের ক্ষেত্রেই এই সংক্রমণ বেশি দেখা যাচ্ছে।

বিশেষজ্ঞরা এই বিষয়ে জানাচ্ছেন – শুধু হাসপাতাল নয়, বাড়ির এসি বা কুলারেও থাকতে পারে ব্ল্যাক ফাংগাস এবং সেখান থেকেই তা ছড়িয়ে পড়ে সংক্রমিত করতে পারে যে কাউকে। মূলত যে ব্যক্তিদের ইমিউনিটি (শারীরিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা) কম, তাঁদের এই ছত্রাকে সংক্রমিত হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।

এই ব্লাক ফাংগাস ছত্রাক রয়েছে এমন পরিবেশে গেলে কোনো ব্যক্তি সহজেই সংক্রামিত হয়ে যান৷ বিশেষত কাদামাটি, পাতাময়, সার আর পচে যাওয়া জিনিসের মধ্যে এই ফাংগাস থাকে৷ কোভিড রোগী আর ডায়াবেটিস রোগী, যাঁদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কম, তাঁদের মধ্যে এই সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কা বেশি৷ যদিও প্রাথমিক অবস্থাতে রোগ ধরা পড়ার পর চিকিৎসায় সাড়া পাওয়া যাচ্ছে সহজেই।

মিউকোরমাইকোসিস নামের মারাত্মক এই ছত্রাক সংক্রমণের ফলে রোগীরা কান, চোখ ও চোয়ালের সমস্যায় ভুগছেন৷ শরীরের কোনও ক্ষত, কাটা জায়গা, পুড়ে যাওয়া ক্ষতস্থান দিয়ে শরীরে ঢোকে এই ব্ল্যাক ফাংগাস। গলা, ত্বক থেকে শুরু করে মস্তিস্কেও ছড়িয়ে পড়ছে ছত্রাকের সংক্রমণ।




শেষে হচ্ছে মর্মান্তিক মৃত্যু৷ ভারতের স্বাস্থ্য দফতরের বিবৃতি অনুযায়ী এই ছত্রাকের আক্রমণে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত রাজ্য অন্ধ্রপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, দিল্লি, গুজরাট৷ করোনা সংক্রমণ থেকে সেরে উঠলেও শরীরে নতুন করে থাবা বসাচ্ছে ব্ল্যাক ফাংগাস৷

দৃষ্টিশক্তি ঝাপসা হয়ে এলে, ত্বকের সংক্রমণ শুরু হলে কিংবা ব়্যাশ দেখা দিতে শুরু করলে সত্বর চিকিৎসকের থেকে পরামর্শ নিতে বলা হচ্ছে। এছাড়া মুখের পেশিতে যন্ত্রণা, দাঁতে ব্যাথা, চোয়ালে ব্যাথাও মিউকরমাইকোসিসে সংক্রমিত হওয়ার লক্ষণ৷ যদি নাক বন্ধ হয়ে যায় বা নাক-চোখ দিয়ে জল পড়তে শুরু করে কিংবা নাক থেকে রক্ত বেরোতে শুরু করে, তাহলেও সতর্ক হয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে বলা হচ্ছে।

মিউকরমাইকোসিসের সংক্রমণ এড়াতে ধুলোবালি রয়েছে এমন জায়গা থেকে দূরে থাকুন৷ এড়িয়ে চলুন এসি / কুলার। জুতোর সঙ্গে মোজা ব্যবহার করুন৷ খালি পায়ে ঘুরবেন না৷ ব্লাড-সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রাখুন। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে অ্যান্টি ফাংগাল ওষুধ ব্যবহার করা যেতে পারে৷




সাধারণত মানুষ নিজের স্বাভাবিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দিয়ে এর মোকাবিলা করতে পারে সহজেই৷ কিন্তু করোনা সংক্রমণের চিকিৎসায় রোগীকে এমন কিছু ওষুধ দেওয়া হয়, যাতে তার স্বাভাবিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে গিয়ে এই ফাংগাল সংক্রমণের সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

যাই হোক, আমাদের সবার সচেতন থাকতে হবে। সচেতনতা ও সাবধানতা ছাড়া আর কোনো সহজ রাস্তা নেই আমাদের কাছে। বাকিটা সৃষ্টিকর্তার ইচ্ছা। পৃথিবীতে নতুন কোনো রোগ এলে তার ওষুধটাও হয়তো চলে আসে। কিন্তু মানুষের সেটা বের করতে খানিকটা দেরী হয়।

হয়তো এর মধ্যেও কোনো নিদর্শন রয়েছে সৃষ্টিকর্তার যা আমরা অনেকেই বুঝি না। আর ঐ খানিকটা দেরীর মধ্যে ঝড়ে যায় অসংখ্য প্রাণ – যা কোনোভাবেই আমরা কখনো আশা করি না।




ব্ল্যাক ফাংগাস নতুন আতঙ্ক। তবে আতঙ্কিত হয়ে দূর্বল হওয়া যাবে না। বেঁচে থাকার লড়াইটা আমাদের করেই যেতে হবে – বাকিটা সৃষ্টিকর্তার ইচ্ছা।

আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করা হলো। আশা করি, তথ্যবহুল আলোচনাটি থেকে আপনারা ব্ল্যাক ফাংগাস সম্পর্কে অনেক কিছুই জানতে পেরেছেন। আবারও আসবো নতুন কোনো পোস্ট নিয়ে। সেই পর্যন্ত সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। করোনাকে ভয় নয় – কেবল সাবধান থাকুন।

এই পোস্টটি যদি আপনার ভালো লাগে এবং প্রয়োজনীয় মনে হয় তবে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না যেন।

মহামারী রোগ নিয়ে আরও পড়তে চাইলে এখানে ক্লিক করুনঃ

ব্ল্যাক ফাংগাস নিয়ে আরও পড়তে এখানে ক্লিক করুনঃ

 

[বিশেষ দ্রষ্টব্য: এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারিরীক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগীতা নিন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।]

অ্যাডমিন বার্তাঃ

আপনাদের সাথে রয়েছি আমি মোঃ জাহাঙ্গীর বিন সফিকুল। ছোট বেলা থেকেই কম্পিউটারের প্রতি খুব আগ্রহ ছিল। মানুষের সেবা করারও খুব ইচ্ছে। আর তাই গড়ে তুলেছি স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক ওয়েবসাইট সানরাইজ৭১। আশা করছি, আপনারা নিয়মিত এই ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন এবং ই-স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন:

ইমেইলে পোস্ট পেতে সাবস্ক্রাইব করুন:

আজকের দিন-তারিখ

  • বুধবার (সকাল ৬:০০)
  • ২৭শে অক্টোবর ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ২০শে রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরি
  • ১১ই কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)
জাতীয় হেল্প লাইন