আজ বুধবার,১১ই কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,২৭শে অক্টোবর ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

Sample Image of Corona Virus

করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে এই পরামর্শগুলো মেনে চলুন

করোনা ভাইরাস


সানরাইজ৭১ এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা আলোচনা করবো করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে কি করণীয় তা নিয়ে অর্থাৎ কিছু পরামর্শ দেয়া হবে। জন্ম-মৃত্যু যদিও আল্লাহর হাতে কিন্তু সাবধানতা অবলম্বন করা প্রত্যেকেরই উচিত। তো আর কথা নয় – সরাসরি যাচ্ছি মূল আলোচনায়।

নিজের হাত সবসময় পরিষ্কার রাখুনঃ সাবধানতা শুরু হচ্ছে আপনার হাত থেকে। হাত দিয়ে আমরা কত কিছু স্পর্শ করে চলি দিনভর। সেই জন্য নিজের হাত বারবার সাবান আর জল দিয়ে ধুতে হবে।




কিংবা অ্যালকোহল দেওয়া স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন। এর ফলে হাতে কোনও ভাইরাস থাকলে তার হাত থেকে মুক্তি মিলবে। বিশেষজ্ঞদের মতে, ৭০ শতাংশের বেশি অ্যালকোহল থাকা স্যানিটাইজার ব্যবহার করা উচিত। স্যানিটাইজার সবসময় নিজের কাছে রাখার চেষ্টা করুন।

আপনার নাক-মুখ ঢেকে রাখুনঃ হাঁচি বা কাশির সময় নিজের নাক ও মুখকে কনুই কিংবা টিস্যু দিয়ে ঢেকে নিন। ব্যবহারের পর টিস্যুটি একটি মুখবন্ধ কৌটোয় রেখে দিন অথবা পুড়িয়ে ফেলুন। আর তারপর নিজের হাত ভাল করে ধুয়ে নিন। হাঁচি-কাশি দেয়ার সময় কাউকে ভুলেও বিব্রত করবেন না।

নিজের মুখকে স্পর্শ করবেন নাঃ শরীরে ভাইরাসকে প্রবেশ না করতে দেওয়ার জন্য নিজের মুখ বিশেষ করে নাক আর মুখে হাত দেবেন না। আমরা হাত দিয়ে বহু কিছু স্পর্শ করি। এর ফলে হাত দিয়ে নাক বা মুখ স্পর্শ করলে সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা তৈরি হয়। প্রয়োজনে অবশ্যই মুখে হাত দেয়ার প্রয়োজন পরতে পারে। তখন স্যানিটাইজার ব্যবহার করুন।




সামাজিক দূরত্ব মেনে চলুনঃ যদিও প্রয়োজনে আপনাকে বাড়ির বাইরে যেতে হতে পারে তথাপি চেষ্টা করবেন সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে। কারণ, কারও সংস্পর্শে গেলে যেহেতু আপনার আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে তাই এ ব্যাপারটিকে গুরুত্ব দিয়ে চলুন।
সন্দেহ হলে বা কোনো সমস্যা অনুভব করলে বাইরে বের হওয়া বন্ধ করুনঃ নানা কারণেই আপনার শরীর খারাপ হতে পারে। সাধারন সর্দি-জ্বর কিন্তু এখন আর সাধারন নয়। তাছাড়া, সাধারন হলেও মানুষ তা কখনোই ভালো চোখে দেখে না। তাই আপনি যদি মনে করেন আপনার সর্দি-জ্বর হয়েছে অথবা অন্য কিছু তবে ঘরের বাইরে বের হওয়া বন্ধ রাখুন। আর যদি সমস্যা গুরুতর হওয়া শুরু করে তবে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিতে ভুলবেন না যেন।
খাবারের প্রতি সচেতন হউনঃ যে খাবারগুলো খেলে আমাদের শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে সেগুলো নিয়মিত খেতে হবে। সেদিকে নজর রাখতে হবে। বিশেষত; ভিটামিন সি এর ঘাটতি যাতে শরীরে না থাকে। নিয়মিত লেবুর রস খাওয়া অভ্যাস করতে হবে।
নিয়মিত ব্যায়াম করুনঃ করোনা মহামারীতে আমরা অনেকেই বাড়িতে বসে আছি। আমরা সাধারণত যতটা বাড়িতে বসে থাকি তার থেকে বেশি সময় বসে থাকতে হচ্ছে। আমরা সাধারণত যে ধরণের ব্যায়াম করি সেটাও করা অনেক কঠিন হয়ে দাঁড়াচ্ছে।




কিন্তু এটা এমন একটা সময় যখন সব বয়সের লোককে একটু বেশি সক্রিয় থাকতে হবে, ব্যায়াম করতে হবে।ছাদে, বারান্দায় হাঁটুন, স্ট্রেচিং করুন। যাতে রক্ত সঞ্চালন এবং পেশীর ক্রিয়াকলাপ ঠিক থাকে।
টিকা নিনঃ যোগ্যতা অনুযায়ী টিকা-করণ কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করুন। প্রত্যেকটা ভ্যাকসিন ট্রায়ালের পর জরুরি ভিত্তিতে ছাড় দেওয়া হচ্ছে। সুতরাং ভয় না পেয়ে টিকা নিন। দরকার হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। টিকা নিতে অবহেলা করবেন না।
তামাক জাতীয় দ্রব্যকে না বলুনঃ তামাক জাতীয় দ্রব্যকে না বলুন। এটা শুধু আপনাকে নয় আপনার গোটা পরিবারকে রক্ষা করবে। ফুসফুসের ক্যান্সার, হৃদরোগের মতন মারাত্মক ঝুঁকি থেকে আপনাকে রক্ষা করবে।
মদ্যপানকে না বলুনঃ মদ্যপান থেকে বিরত থাকুন। মদ্যপান করলে শরীর ডিহাইড্রেটেড হয়ে যেতে পারে। এছাড়া মদ্যপানের কারণে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও কমে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। মদ্যপান শরীরের জন্য ভালো কিছু বয়ে আনে না।
শিশুর প্রতি মনোযোগী হউনঃ শিশুদের জন্যে সবথেকে পুষ্টিকর খাবার হল মাতৃদুগ্ধ। এটি মা-শিশুর বন্ধনকে আরও শক্তিশালী করতে সহায়তা করে। মাতৃদুগ্ধ পান করলে শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। বাচ্চাদের অ্যালার্জি এবং একজিমা থেকে রক্ষা করে। তাই শিশুকে মায়ের বুকের দুধ খাওয়াতে কখনোই আলসেমি করবেন না।




আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করা হলো। আশা করি, করোনা নিয়ে আলোচনাটি আপনাদের কাজে লেগেছে। আবারও আসবো নতুন কোনো পোস্ট নিয়ে। সেই পর্যন্ত সবাই সুস্থ্য, সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন। করোনাকে ভয় নয় – কেবল সচেতন থাকুন।
এই পোস্টটি যদি আপনার ভালো লাগে এবং প্রয়োজনীয় মনে হয় তবে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না যেন।
করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত বিষয়ে আরও পড়ুন এখানেঃ
করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত তথ্য (বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা) পড়ুন এখানেঃ
[বিশেষ দ্রষ্টব্য: এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারিরীক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগীতা নিন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।]

অ্যাডমিন বার্তাঃ

আপনাদের সাথে রয়েছি আমি মোঃ জাহাঙ্গীর বিন সফিকুল। ছোট বেলা থেকেই কম্পিউটারের প্রতি খুব আগ্রহ ছিল। মানুষের সেবা করারও খুব ইচ্ছে। আর তাই গড়ে তুলেছি স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক ওয়েবসাইট সানরাইজ৭১। আশা করছি, আপনারা নিয়মিত এই ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন এবং ই-স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন:

ইমেইলে পোস্ট পেতে সাবস্ক্রাইব করুন:

আজকের দিন-তারিখ

  • বুধবার (সকাল ৬:৫৫)
  • ২৭শে অক্টোবর ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ২০শে রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরি
  • ১১ই কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)
জাতীয় হেল্প লাইন