আজ শনিবার,১০ই আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,২৫শে সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

শিশুদের শীতকালিন রোগে হোমিওপ্যাথি সবার জানা জরুরী !

শিশুদের শীতকালিন রোগে হোমিওপ্যাথি
সানরাইজ৭১ এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা আলোচনা করবো শিশুদের শীতকালিন রোগে হোমিওপ্যাথি, সবার জানা জরুরী !তো আর কথা নয় – সরাসরি যাচ্ছি মূল আলোচনায়।
খুব হাঁচি ও নাক দিয়ে প্রচুর কাঁচা জল, সঙ্গে প্রচুর পিপাসা- একোনাইট ন্যাপ ৩০ দিনে দুবার দুদিনের বেশি দেওয়া যাবে না। প্রথম দিকে দিলে ভাল কাজ হয়। অনেক সময়ে দেখা যায় উপরুক্ত লক্ষণগুলো ছাড়াও জর আছে।
জর ১০০ বা ১০২ ডিগ্রি অবধি উঠতে পারে – ব্রায়ওনিয়া ৩০ দিনে ২ থেকে ৩ বার ৩ থেকে ৫ দিন। এ ছাড়াও কোষ্ঠকাঠিন্ন্য থাকলেও এই ঔষধ উপকারী । বায়োকেমিক ঔষধ হিসেবে ফেরাম ফস ৬ক্স ও কালি মিউর ৬ক্স দুটো দুটো করে মোট চারটে ট্যাবলেট দিনে ৩ থেকে ৪ বার খেলে উপকার হয় ।
গোসলের পর সর্দি ও জর হলে রাসটক্স ৩০ দিনে ৩ বার, ৩ থেকে ৪ দিন খেতে হবে। এ ছাড়াও ডালকামারা ৩০ ও একই ভাবে খাওয়া যায় ।
শিশুদের ঘন ঘন সর্দি , পরিবারের লোকেদের ও ঘন ঘন সর্দি, যক্ষ্মার ইতিহাস আছে – ২ মাস অন্তর টিউবারকুলিনাম ২০০ একবার । শীতকালে সর্দির প্রতিষেধক – কালি কারব ২০০ সপ্তাহে একবার।
ভাইরাল জ্বরে ইনফ্লুএঞ্জিয়াম ৩০ বা ২০০ ১ বা ২ বার। অনেক সময়ে দেখা যায় ইনফ্লুয়েঞ্জার পর খুব কাশি হয় এবং রোগী দুর্বল হয়ে পড়ে – কালি ফস ৬এক্স ৪ টে ট্যাবলেট দিনে ৩ বার ১০ দিন। সর্দির সঙ্গে গলা ব্যাথা , ঢোক গিলতে কষ্ট,পিপাসা , কষ্ট রাতে বাড়ে – মার্ক সল ৩০, দিনে দুবার ২ দিনের বেশি দেবেন না। সকালে ঘুম থেকে উঠে হাঁচি – স্যাবাদিলা ৬ । এছাড়াও অ্যালিয়াম সেপা ৩০, ন্যাট্রাম মিউর ৩০ উপকারী ।
২। পেটের অসুখ –
সর্দি কাশির পর পেটের অসুখে শিশুরা বেশি ভোগে ।পেট ব্যাথা, পেটে ভুটভাট শব্দ, ব্যাথা এ পাশ ও পাশ করে, শিশু বিছানায় ছটফট করে, কাঁদে ,পাতলা পায়খানা,খিদে কম, ইত্যাদি।
পেটে ভুটভাট শব্দ, ব্যাথা এ পাশ ও পাশ করে – কার্বো ভেজ ৩০। খাবার ঠিক ঠাক হজম না হয়ে
পেটের গোলমাল -নাক্স ভম ৩০ গুরুপাক খাবার খেয়ে পেটের গোলমাল – পালসেটিলা ৬ বা ৩০।
পেট কামড়ানো বা মোচড়ানো, এতটাই প্রবল যে রোগী হাঁটু মুড়ে শুয়ে বা বসে থাকে- কলোসিন্থ ৩০ ।
জিভে দাঁতের ছাপ, মুখ দিয়ে লালা, পায়খানায় শ্লেষ্মা বা আম – মার্ক সল ৩০ । ২ বা ৪ বারেই কাজ হয় ।
শিশু খেতে চায় না, কাঁদে আবার কোলে নিলে কান্না থামে – কামোমিলা ৩০ ।
শিশু দু-তিন দিন পায়খানা করেনি, খিদে নেই, পেটে গ্যাস – কষ্টিকাম ৩০ এক বার বা দু বার দিলেই কাজ হবে । অনেক সময়ে দেখা যায় কষ্টিকাম কাজ করে না । সেক্ষেত্রে অ্যালুমিনা ২০০ একবার দিলে ফল পাওয়া যায় ।
এছাড়াও অন্যান্য অসুখ বিশুখ আছে যেগুলো লক্ষণ বুঝে চিকিত্সা করতে হবে।
এই পোস্টটি যদি আপনার ভালো লাগে এবং প্রয়োজনীয় মনে হয় তবে অন্যদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না যেন।

 মোঃ জাহাঙ্গীর আলম। (অনার্স – অ্যাকাউন্টিং, দিনাজপুর সরকারি কলেজ এবং সিইও – দিনাজপুর স্কুল নামক ইউটিউব চ্যানেল)।

[বিশেষ দ্রষ্টব্য: এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারিরীক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগীতা নিন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।]

অ্যাডমিন বার্তাঃ

আপনাদের সাথে রয়েছি আমি মোঃ জাহাঙ্গীর বিন সফিকুল। ছোট বেলা থেকেই কম্পিউটারের প্রতি খুব আগ্রহ ছিল। মানুষের সেবা করারও খুব ইচ্ছে। আর তাই গড়ে তুলেছি স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক ওয়েবসাইট সানরাইজ৭১। আশা করছি, আপনারা নিয়মিত এই ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন এবং ই-স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন:

ইমেইলে পোস্ট পেতে সাবস্ক্রাইব করুন:

সাম্প্রতিক পোস্টসমুহ

আজকের দিন-তারিখ

  • শনিবার (রাত ৯:০১)
  • ২৫শে সেপ্টেম্বর ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ১৭ই সফর ১৪৪৩ হিজরি
  • ১০ই আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ (শরৎকাল)
জাতীয় হেল্প লাইন