আজ বুধবার,১১ই কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ,২৭শে অক্টোবর ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

জরায়ুর সমস্যা হোমিও

জরায়ুর সমস্যা হোমিও চিকিৎসা।

জরায়ুর সমস্যা হোমিও চিকিৎসা।
সানরাইজ৭১ এ সবাইকে স্বাগতম। আশা করছি, সবাই ভালো আছেন। আজ আমরা আলোচনা করবো জরায়ুর সমস্যা হোমিও চিকিৎসা।সবার জানা জরুরী !তো আর কথা নয় – সরাসরি যাচ্ছি মূল আলোচনায়।
জরায়ুর সমস্যা হোমিও চিকিৎসা।
জরায়ু স্ব-স্থান থেকে সরে যাওয়াকে জরায়ুর স্থানচ্যুতি বলা হয়। বিভিন্ন কারণে জরায়ুর স্থানচ্যুতি ঘটতে পারে। লিগামেন্ট নামক দড়ির মতো কাঠামো দিয়ে জরায়ু নিজেকে স্ব-স্থানে ধরে রাখে। যেকোনো কারণে এই কাঠামো দুর্বল হয়ে গেলে জরায়ুর অবস্থান স্বাভাবিক থাকে না। জরায়ুর স্থানচ্যুতির মধ্যে রয়েছে —
★ রিট্রোভার্সান (স্যাক্রামের বাঁকের মধ্যে পতিত হওয়া)
★ রিট্রোফ্লেকসান (পশ্চাতে বক্র হয়ে পড়া)
★ ইনভার্সান (উল্টে যাওয়া)
★ জরায়ুর নিচে নেমে যাওয়া বা ইউটেরাইন প্রলাপ্স
নারীদের জরায়ু সংক্রান্ত রোগসমূহের মধ্যে “জরায়ু নেমে আসার” সমস্যাটি অন্যতম । দেখা যায়, এই রোগটি অধিকাংশ ক্ষেত্রেই একটি বা একাধিক সন্তান জন্মের জন্য হয়ে থাকে । এক্ষেত্রে জরায়ু প্রায় সবটাই যোনির মধ্যে ঝুলে পড়ে । বাইমেনুয়াল পরীক্ষাতে একটি আঙ্গুল প্রবেশ করালেই এই রোগ অনেকটা বুঝতে পারা যায় ।
এই রোগের নিশ্চিত আরোগ্যকারী চিকিৎসা রয়েছে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা বিজ্ঞানে।
#
ইউটেরাস বা জরায়ু তাহার স্বাভাবিক অবস্থান থেকে বিচ্যুতি হওয়াকে ইউটেরাইন প্রলাপ্স বলে। ইউটেরাইন প্রলাপ্স এর ক্ষেত্রে ইউটেরাস কোন অবস্থানে আছে তাহার উপর নির্ভর করে তিন ভাগে ভাগ করা হয়। এই ভাগগুলিকে সাধারণত ডিগ্রী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়।
জরায়ু কতটা পরিমান নেমে আসে তার একটা মোটামুটি মাত্রা রয়েছে এবং সেই মাত্রা অনুসারে এই রোগ লক্ষণটিকে তিনভাবে ভাগ করা যায় যথা :
★ প্রথম ডিগ্রী :- সামান্য নেমে আসা অর্থাৎ ১/৪” পর্যন্ত নেমে আসা।
★ দ্বিতীয় ডিগ্রী :- অনেকটা বেশি নেমে আসা অর্থাৎ ১” পর্যন্ত নেমে আসা।
★ তৃতীয় ডিগ্রী :- প্রায় সবটাই নেমে আসা অর্থাৎ ২” — ২.১/৪” পর্যন্ত নেমে আসা অথবা তার চেয়ে বেশি নেমে আসা।
নারীদের জরায়ু নেমে আসার সমস্যায় তৃতীয় ডিগ্রীই মারাত্মক। তবে অন্য দুটি ক্ষেত্রেও নারীরা বেশ জটিলতায় ভুগে থাকেন।
#ইউটেরাইন_প্রলাপ্সের_কারণ-
বিভিন্ন কারণে ইউটেরাইন প্রলাপ্স হতে পারে যেমন-
১. জন্মগতভাবে লিগামেন্টের দুর্বলতা
২. জন্মগত- ভাবে লম্বা সার্ভিক্স
৩. জন্মগতভাবে শর্ট ভ্যাজাইনা
৪. জন্মগতভাবে ইউটেরাস ভাল্বের বাহিরে সংস্থাপিত হলে
৫. অধিস সন্তান ধারণের ফলে হতে পারে, কারণ এ ক্ষেত্রে রিপিটেড লেবারের ফলে হতে পারে
৬. লেবারের সময় বা প্রসবের সময় প্রসবের দ্বিতীয় এবং তৃতীয় ধাপের সময় অর্থাৎ বাচ্চা প্রসব এবং প্লাসেন্টা ডেলিভারীর সময় যদি সঠিক ব্যবস্থা না নেওয়া হয় (প্রসবের সময় যদি সঠিক ব্যবস্থা না নেওয়া হয়)
৭. ভুল পোষ্টনেটাল কেয়ার (ডেলিভারীর পরবর্তি ব্যবস্থাপনা যদি সঠিক না হয়)
৮. পেটে চাপ পড়ার কারণে হতে পারে যেমন-ক্রনিক কাশি, ক্রণিক কনষ্টিপেশন, ভারী জিনিস উত্তোলন, এজমা ইত্যাদি। কিন্তু অনেকে দীর্ঘ দিন কাশি থাকলেও তাহার জন্য সঠিক চিকিৎসা নেননা বা অনেক দেরী করে চিকিৎসকের নিকট আসেন। তেমনি ক্রণিক কনষ্টিপেশন বা সিভিয়ার কনষ্টিপেশনের কারণে রোগীকে মল ত্যাগ করার জন্য দীর্ঘ সময় বেগ দিয়ে মল ত্যাগ করতে হয় যাহা জরায়ুর স্থানচ্যুতির জন্য দায়ী। অনেক সময় মহিলারা অসাবধানতাবশত: অনেক ভারী বস্তু উত্তোলন করে থাকেন যাহার ফলে জরায়ুর স্থানচ্যুতি হতে পারে। সুতরাং জরায়ুর স্থানচ্যুতি থেকে রক্ষা পাওয়া জন্য আমাদের এই সমস্ত বিষয়ের উপর দৃষ্টি রাখতে হবে।
#ইউটেরাইন_প্রলাপ্সের_লক্ষণ-
১. মনে হয় যোনি পথ দিয়ে কিছু বের হয়ে আসছে বা যোনি পথ দিয়ে কিছু বের হয়ে আসা।
২. যোনিতে বেদনা দায়ক অস্বস্থি
৩. কোমরে ব্যথা, হাটলে বাড়ে
৪. বার বার প্রস্রাবের বেগ
৫. প্রস্রাব এর আগে কষ্ট প্রস্রাব কারার পর কিছুটা উপশম।
৬. রিটেনশন অব ইউরিন।
৭. আলসার
৮. সহবাসের সময় অসুবিধা হওয়া।
#হোমিওপ্যথিক_চিকিৎসা ঃ অন্যান্য চিকিৎসা ব্যবস্থায় ইউটেরাইন প্রলাপ্স এর চিকিৎসা নেই বললেই চলে।
এই ধরনের সমস্যা জটিল আকার ধারন করলে উনারা অপারেশন এর পরামর্শ দেন।
কিন্তু ইউটেরাইন প্রলাপস এর যথাযথ চিকিৎসা হোমিওপ্যাথিতে রয়েছে। মাসিক ইতিহাস সহ মানসিক ও অন্যান্য শারীরিক লক্ষণ এর ভিত্তিতে সঠিক ঔষধ নির্বাচিত হলে এই রোগ নির্মূল সম্ভব। তাই এই ধরনের সমস্যায় সঠিক সিদ্বান্ত নিন এবং আপনার নিকটস্থ একজন রেজিস্ট্রার্ড হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকের চিকিৎসা নিন।
ইউটেরাইন প্রলাপ্স এর উল্লখযোগ্য কিছু হোমিওপ্যাথিক মেডিসিন ঃ মিউরেক্স, অরাম মেট, পডোফাইলাম, লিলিয়াম টিগ, সিপিয়া, সালফার ইত্যাদি।এছাড়াও লক্ষন মিলিয়ে আরো অন্যান্য মেডিসিনও আসতে পারে।
[বিশেষ দ্রষ্টব্য: এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারিরীক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগীতা নিন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।]

অ্যাডমিন বার্তাঃ

আপনাদের সাথে রয়েছি আমি মোঃ জাহাঙ্গীর বিন সফিকুল। ছোট বেলা থেকেই কম্পিউটারের প্রতি খুব আগ্রহ ছিল। মানুষের সেবা করারও খুব ইচ্ছে। আর তাই গড়ে তুলেছি স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক ওয়েবসাইট সানরাইজ৭১। আশা করছি, আপনারা নিয়মিত এই ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন এবং ই-স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন:

ইমেইলে পোস্ট পেতে সাবস্ক্রাইব করুন:

আজকের দিন-তারিখ

  • বুধবার (সকাল ৭:৫২)
  • ২৭শে অক্টোবর ২০২১ খ্রিস্টাব্দ
  • ২০শে রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিজরি
  • ১১ই কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)
জাতীয় হেল্প লাইন