আজ রবিবার,৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ,২২শে নভেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দ

www.sunrise71.com

মহিলাদের ডিম্বকোষ এবং যোনির কয়েকটি রোগ ও হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা

ডিম্বকোষ ও যোনির রোগ এবং চিকিৎসা


 

ডিম্বকোষের কয়েকটি রোগের চিকিৎসাঃ

ডিম্বকোষযোনির রোগ নিয়ে এখানে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। মহিলাদের এই রোগগুলি খুবই মারাত্মক । রোগের লক্ষন দেখা দিলে আলসেমি না করে অভিজ্ঞ হোমিও চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে চিকিৎসা নেয়ার পরামর্শ রইলো।

জরায়ুর মতো ডিম্বকোষেরও নানাবিধ রোগ হয়ে থাকে। এ রোগগুলিও নানাভাবে ক্ষতি করে এবং নারীর শরীরকে জরাজীর্ণ করে তোলে।

এ রোগ হলে ডিম্বকোষে ব্যথা বা যন্ত্রণা হয়, কুঁচকির উপরের অংশে কনকন করে, নড়াচড়া করলে আক্রান্ত স্থানে ব্যথা অনুভূত হয়। অনেক সময় জ্বর হয়ে থাকে।

সঙ্গমের ইচ্ছা বৃদ্ধি পায়, বমি-বমি ভাব থাকে। রোগটা ঠিক কোথায় হচ্ছে এবং কি কষ্ট হচ্ছে তা জেনে ওষুধ দিলে রোগ সারতে দেরি হয় না।


 

চিকিৎসাঃ

বাঁদিকের ডিম্বকোষের রোগে- আর্জ মেট ৬, কেলি কার্ব ৬, স্ট্র্যমো ৬ বা ল্যাকেসিস ৬।

ডানদেকর ডিম্বকোষের রোগে- আর্সেনিক ৬, এপিস ৩, লাইকোপোডিয়াম ১২, সিপিয়া ৬, ক্যালক্যারিয়া ৬ বা বেলেডোনা ৩।

ডিম্বকোষের তরুণ প্রদাহে- এপিস মেল ৬ বা অ্যাকোনাইট ন্যাপ ৩x।

ডিম্বকোষের পুরাতন প্রদাহে- ল্যাকেসিস ৬ বা কোনায়াম ৬।

ডিম্বকোষের বেদনায়- ন্যাজা ৬, পালসেটিলা ৩, হিপার সাল্ফ ৬, সিমিসিফিউগা ৩, হ্যামামেলিস ৩, ক্যান্থারিস বা ল্যাকেসিস ৩।

ডিম্বকোষের স্নায়ুশূলে- ন্যাজা ৬।

ডিম্বকোষের পুরাতন রোগে- কোনায়াম ৩।

ডিম্বকোষে শোথ হলে- আয়োড ৩, এপিস মেল ৩ বা কেলি ব্রোম ১x চূর্ণ।

ডিম্বকোষের স্থানচ্যুতি ঘটলে- কোনায়াম ৩ বা বুফো ৬।

ডিম্বকোষের কাঠিন্য দোষে- গ্রাফাইটিস ৬।

ডিম্বকোষে অর্বুদ হলে- ল্যাকেসিস ৩০, সিকেলি ১ বা বেলেডোনা ৩।

উপরোক্ত ওষুধগুলি রোগের তারতম্য অনুযায়ী রোগীকে খাওয়াতে হবে।


 

যোনির কয়েকটি রোগের চিকিৎসাঃ

যোনির রোগ অত্যন্ত পীড়া ও কষ্টদায়ক। যোনিতে প্রদাহ, যোনিতে চুলকানি, যোনিতে ঘা বা অর্বুদ প্রভৃতি হলে আক্রান্তস্থলে ব্যথা হয়, যন্ত্রণা করে, জ্বালা করে, কখনো বা চুলকায়।

আক্রান্ত রোগিনীকে সব সময় অস্বস্তিকর অবস্থায় কাটাতে হয়। যোনির রোগ থেকে বন্ধ্যাত্ব দোষও দেখা দিতে পারে।

যোনির রোগ হলে ঠান্ডা ও গরম থেকে রোগিনীকে সাবধান থাকতে হবে। নিয়মিত ও নির্দিষ্ট সময়ে গোসল – খাওয়া করা দরকার।

পুষ্টিকর অথচ হালকা ধরনের খাদ্য গ্রহণ এ ধরনের রোগিনীর পক্ষে খুবই উপকারী। রোগিনীর পক্ষে কঠিন পরিশ্রম করা ও বিশ্রাম কম হওয়া যথেষ্ট ক্ষতিকর হিসেবে বিবেচিত হয়।


 

চিকিৎসাঃ

যোনিতে অর্বুদ হলে- ক্রিয়োজোট ৬ বা কার্বো-অ্যানিমেলিস ৩।

যোনিতে নালী ঘা হলে- ল্যাকেসিস ৬ বা সিলিকা ৬।

যোনির অর্বুদ থেকে রক্তস্রাব হলে- কক্বাস-ক্যাক্টাই ৩x।

স্রাব বদল হলে- পালসেটিলা ৬।

সঙ্গমের ফলে বা আঘাত জনিত কারণে রক্তস্রাব হলে- আর্নিকা ৩।

যোনি শক্ত বা কঠিন হলে- কোনায়াম ৬ বা বেলেডোনা ৩।

যোনিতে পচন দেখা দিলে- ল্যাকেসিস ৬ বা আর্সেনিক ৬। পারদ দোষে যোনিতে পচন দেখা দিলে- নাইট্রিক অ্যাসিড ৬।


 

যোনিতে প্রদাহঃ

প্রদাহ বা ইনফ্লামেইশান নানা কারণে হতে পারে। যেমন- ঠান্ডা লেগে, আঘাত লেগে প্রমেহ জনিত দোষের জন্য ইত্যাদি। যোনি লাল হয়ে উঠবে, স্ফীত হবে, ব্যথা-যন্ত্রণা হবে ও পুঁজ হবে। সঠিক লক্ষণ দেখে ওষুধ দেওয়া দরকার।

চিকিৎসাঃ

আঘাত লেগে প্রদাহ হলে- আর্নিকা ৩।

ঠান্ডা লেগে প্রদাহ হলে- মারকিউরিয়াস ৩ বা অ্যাকোন ৩x।

প্রমেহ দোষে প্রদাহ হলে- সিপিয়া ১২।

প্রস্রাব করার সময় জ্বালা বা যন্ত্রণা হলে- নাইট্রিক অ্যাসিড ৬, ক্যান্থারিস ৬, বোরাক্স ৬, সালফার ৩০। যেকোন একটি ওষুধ সেব্য।


 

বন্ধ্যাত্ব দোষের চিকিৎসাঃ

প্রথমে জানা দরকার কেন বন্ধ্যাত্ব দেখা দেয়। ডিম্বকোষের ক্ষীণতা এবং শ্বেত প্রদরের তীব্রতাকেই প্রধানতঃ বন্ধাত্ব দোষের জন্য দায়ী করা চলে।

এ রোগের উৎকৃষ্ট ওষুধ- বোরাক্স ও কোনায়াম।

ডিম্বকোষের ক্ষীণতার জন্য- কোনায়াম ৩।

শ্বেত প্রদরের তীব্রতার জন্য- বোরাক্স ৬।

এ রোগের অন্য ওষুধ- নেট্রাম মিউর ৩০ ও ফসফরাস ৬।

নিয়মিত গোসল, পুষ্টিকর আহার, দীর্ঘদিন বাদে বাদে সঙ্গম বন্ধ্যাত্ব দোষের পক্ষে উপকারী।


আজকের আলোচনা এখানেই শেষ করলাম। আশা করি, বুঝতে পেরেছেন। নতুন কোনো স্বাস্থ্য টিপস নিয়ে হাজির হবো অন্য দিন। সবাই সুস্থ্য, ‍সুন্দর ও ভালো থাকুন। নিজের প্রতি যত্নবান হউন এবং সাবধানে থাকুন।

এই পোস্টটি যদি আপনার ভালো লাগে এবং প্রয়োজনীয় মনে হয় তবে অনুগ্রহ করে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে ভুলবেন না যেন।

 

[বিশেষ দ্রষ্টব্য: এই ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যগুলো কেবল স্বাস্থ্য সেবা সম্বন্ধে জ্ঞান আহরণের জন্য। অনুগ্রহ করে ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ওষুধ সেবন করুন। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবনে আপনার শারীরিক বা মানসিক ক্ষতি হতে পারে। প্রয়োজনে, আমাদের সহযোগিতা নিন। আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ।]

অ্যাডমিনঃ

আপনাদের সাথে রয়েছি আমি মোঃ আজগর আলী। ছোট বেলা থেকেই কম্পিউটারের প্রতি খুব আগ্রহ ছিল। মানুষের সেবা করারও খুব ইচ্ছে। আর তাই গড়ে তুলেছি স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক ওয়েবসাইট সানরাইজ৭১। আশা করছি, আপনারা নিয়মিত এই ওয়েবসাইট ভিজিট করবেন এবং ই-স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরও পড়ুন:

সাম্প্রতিক পোস্টসমুহ

আজকের দিন-তারিখ

  • রবিবার (বিকাল ৪:০৮)
  • ২২শে নভেম্বর ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
  • ৬ই রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরি
  • ৭ই অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (হেমন্তকাল)